Globe Securities Ltd. | Post Details
6 Aug

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগই লাভজনক

বিশ্বে বিনিয়োগের মাধ্যমে টাকা উপার্জন করার জন্য কোটি কোটি মানুষের একটি মাত্র প্রশ্ন কোথায় বিনিয়োগ করব? বিশ্বের জ্ঞানী গুনী অর্থনীতিবিদদের বিভিন্ন জনের বিভিন্ন মত। অনেকের মতে জায়গা, সোনা, বন্ড, শেয়ার ও এফডিআর এর মাধ্যমে বিনিয়োগ করে টাকা আয় করা ।  কিন্তু সব বিনিয়োগেই কমবেশি ঝুঁকি আছে। যেমন: জায়গা জমিতে বিনিয়োগ করলে, জটিলতার সম্ভাবনা আছে, বিশেষ করে আমাদের দেশে দুধের মত সাদা জায়গার খুবই অভাব। ৯৫% জায়গাতেই কম বেশি জটিলতা আছে। শুধুমাত্র ৫% বা তার চেয়ে কম জায়গা নিষ্কন্টক। একবার  যদি বিনিয়োগকৃত জায়গায় জটিলতা দেখা দেয় তবে মামলা মোকদ্দমার হাত থেকে বের হয়ে আসা ও মূলধন ফিরে পাওয়া খুবই কঠিন কাজ।

ক্যান্সারে আক্রান্ত জায়গায় ক্রেতা খুজে পাওয়া কঠিন।  সোনায়-আধার, বন্ড ও এফডিআর  বিশ্বের আর্থিক অবস্থায় বিবেচনায় বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেশে ইন্টারেস্ট ভিন্ন ভিন্ন হওয়ার কারণে কাঙ্খিত মুনাফা পাওয়া কষ্টকর। অনেকের মতে, শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ অনেকের মতে নিরাপদ নয়। কিন্তু আমার মতে একমাত্র শেয়ার বাজারই বিনিয়োগের জন্য উত্তম জায়গা। আপনি তথা অনেকেই দ্বিমত পোষণ করতে পারেন। আমি ৩টি উদাহরণের মাধ্যমে প্রমাণ করার চেষ্টা করব উপরে উল্লেখিত সকল প্রকার বিনিয়োগের চেয়ে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগে লাভজনক।

১। ২০০৬ সালে আমার এক বন্ধু আমার পরামর্শে ১০০টা স্কয়ার ফার্মার শেয়ার ক্রয় করেন ৬৫,০০০/= টাকায়। ২০১৭ সাল পর্যন্ত  নগদ ও বোনাস শেয়ার প্রাপ্তির মাধ্যমে বর্তমান পোর্টফোলিও ভ্যালু ৩৬,৮১,০০০/= টাকা। নিচে টেবিলের মাধ্যমে তা দেখানো হল।

বছর

নগদ লভ্যাংশ

বোনাস লভ্যাংশ

মোট শেয়ার

২০০৬

৫০% – ৫০০০/-

৫০%

১০০+৫০ = ১৫০

২০০৭

৪০% – ৬০০০/-

৩৫%

১৫০+৫২ = ২০২

২০০৮

৪০% – ৮০৮০/-

২৫%

২০২+৫০ = ২৫২

২০০৯

৩৫% – ৮৮২০/-

৩০%

২৫২+৭৫ = ৩২৭

২০১০

৩০% – ৯৮১০/-

৩৫%

৩২৭+১১৪ = ৪৪১

২০১১

২৫% – ১১,০২৫/-

৪০%

৪৪১+১৭৬ = ৬১৭

২০১২

২৫% – ১৫,৪২৫/-

৩০%

৬১৭০+১৮৫১= ৮০২১ ( ১০০ /১০)

২০১৩

৩০% – ২৪,০৬৩/-

১৫%

৮০২১+১২০৩ = ৯২২৪

২০১৪

৩০% – ২৭,৬৭২/-

১২.৫%

৯২২৪+১১৫৩ = ১০৩৭৭

২০১৫

৪০% – ৪১,৫০৮/

১০%

১০৩৭৭+১০৩৭ =১১৪১৪

২০১৬-২০১৭

৩৫% – ৩৯,৯৪৯/

৭.৫%

১১৪১৪+৮৫৬ = ১২,২৭০

মোট

১,৯৭,৩৫২/=

৩০০ টাকা দরে

৩৬,৮১,০০০/=

 

২। বিনিয়োগকারী পেশায় একজন ডাক্তার। তিনি ২০১৩ সালের ৫ ডিসেম্বর ২০ লাখ টাকা জমা দিয়ে আমাকে দায়িত্ব দেন শেয়ার কেনার জন্য । আমি দুই একদিন চিন্তা ভাবনা করে একজনের সঙ্গে পরামর্শ করে স্কয়ার ফার্মা শেয়ার ক্রয় করি। উক্ত পোর্টফোলিওর  মূল্য এখন ৬২,৪৭,৯১৬ টাকা।

৩। জনৈক ভদ্রলোক একজন ট্রাভেল ব্যবসায়ী, সিলেট শহরে অনেক দিন ব্যবসা করার পরও সিলেট শহরে নিজের কোনো স্থায়ী আবাসন ছিল না। কিন্তু ২০০৮ সালে আমাদের প্রতিষ্ঠান এস আর ক্যাপিটাল লিমিটেডের মাধ্যমে আমার পরামর্শে স্কয়ার ফার্মা শেয়ার ক্রয় করেন, এবং তা থেকে আয় করে বর্তমানে তিনি স্বচ্ছল ও সিলেট শহরে একটি অত্যাধুনিক ডুপলেক্স বাড়ী নির্মান করেন। আমার সাথে পরামর্শ করে বাড়ীর নামকরণ করেন স্কয়ার নিবাস।

অন্ন্, বস্ত্র, খাদ্য, বাসস্থান, চিকিৎসা এই ৫টি জিনিস বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের মৌলিক অধিকার। এ অধিকার অর্জন ও বাস্তবায়নের জন্য জন্মের পর হতে মানুষ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে আসছেন। উপরোক্ত বিষয় গুলি বাস্তবায়নের জন্য বা অর্জনের জন্য টাকার প্রয়োজন। এজন্য মানুষ ভিন্ন পেশায় কর্মরত থাকেন ও করেন। যেমন: চাকুরী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ব্যবসা ইত্যাদি। বাংলাদেশ তথা বিশ্বে মানুষ শেয়ার, বন্ড, ফিক্সড ডিপোজিট ও অন্যান্য খাতে বিনিয়োগ করে থাকেন। ইতিহাসবিদদের মতে বিশ্বের ১ নম্বর ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে অধিকাংশ ব্যক্তিই শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছেছেন। আমি ১৯৯৬ সালে আইপিও’র এর মাধ্যমে  শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করা শুরু করি।

প্রত্যেক মানুষের চলার পথে মসৃন নয়। বাস্তব সত্য হল উঠা-নামা আছে। শিল্পীর গানের তাল, লয় ও সুরারোপ করার পর যখন সংঙ্গীত হয় তখন মধুর শোনা যায়। ভূপেন হাজারিকার গলার সুরের গ্রাফ আর আব্দুল আলীমের পল্লীগীতির গলার গ্রাফ এক নয়। মানুষের জীবনে চাকুরী, ব্যবসা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন উত্থান পতন ঘটে, ইহা বাস্তব সত্য। তেমনি যেখানে ঝুঁকি বেশি সেখানে লাভের সম্ভাবনা প্রচুর । সেই অনুপাতে সাহসী ও কৌশলী বিনিয়োগকারীদের জন্য শেয়ার বাজারে বিনিয়োগই উত্তম। আমরা যুদ্ধকরে দেশ স্বাধীন করে লাল সবুজ পতাকা অর্জন করি। আসুন যার যার অবস্থান থেকে সঞ্চয় করার মত টাকা বিনিয়োগ করে বাংলাদেশের শিল্প বিপ্লব ঘটিয়ে চাকুরীর  সুযোগ সৃষ্টি করে, বেকারত্ব দূর করে, ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য পরিবেশ বান্ধব আলোকিত বাংলাদেশ বিনির্মান করি।

লেখক: মো. সিদ্দিকুর রহমান

Comments